x

এইমাত্র

  •  বিশ্বে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ ৬৫ লাখ ৩৭ হাজার ৭৬৫ জন
  •  বিশ্বে করোনায় মোট মারা গেছেন ৫ লাখ ৩৬ হাজার ৮৫৩ জন
  •  গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় নতুন সংক্রমিত ৩২০১ জন, মৃত ৪৪ জন
  •  বড় নিয়োগ আসছে প্রাথমিকে
  •  এবারের হজে কাবা স্পর্শ করা নিষিদ্ধ

জেনে নিন কিছু পণ্যের মেয়াদ

প্রকাশ : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২০:০৫

জাগরণীয়া ডেস্ক

কিছু কিছু গৃহস্থালী পণ্য আছে, যা আসলে কতদিন ব্যবহার করা উচিত, আমরা জানি না। কারণ এসব পণ্যের মেয়াদ উত্তীর্ণের কোন তারিখ থাকে না। নষ্ট না হওয়া পর্যন্ত আমরা ব্যবহার করতে থাকি, যা আসলে ঠিক না।

তোয়ালে- এক থেকে তিন বছর

পণ্যের মান ভেদে একটি তোয়ালে এক থেকে তিন বছর ব্যবহার করা যায়। ভেজা তোয়ালে ব্যাক্টেরিয়া জন্মানোর কারখানা যা নিয়মিত পরিষ্কার করেও দূর করা সম্ভব না।

চিরুণী- ছয় মাস থেকে ১ বছর

চিরুণী ছয় মাস থেকে ১ বছর পর পর পরিবর্তন করা উচিত। পুরানো চিরুণী চুলের ব্রাশ হতে পারে মাথার ত্বক ও চামড়ার রোগের জীবাণুর আবাসস্থল। এটা চুল পড়ারও অন্যতম বড় কারণ হতে পারে।

বালিশ- দুই থেকে তিন বছর

বালিশের ফোলাভাব কমে আসার সঙ্গে সঙ্গে এটা জীবাণুর আবাসস্থলে পরিণত হতে থাকে। তাই বালিশ চিমসে যাওয়ার আগেই প্রতি দুই থেকে তিন বছর পর পর পরিবর্তন করা উচিত। এতে করে সুস্থ থাকা সম্ভব।    

স্লিপার- ছয় মাস

হ্যাঁ, স্লিপার’য়েরও মেয়াদ শেষ হওয়ার তারিখ আছে। প্রতি ছয় মাস পর পর স্লিপার পরিবর্তন করা দরকার। এর মূল কারণ হল ফাঙ্গাসের সংক্রমণ ছড়ায় এমন জায়গাতেই মূলত এটা ব্যবহার করা হয়। প্রতিদিন পরিস্কার করলেও ছয় মাসের বেশি এ পণ্য ব্যবহার করা উচিত না। 

বাথ স্পঞ্জ- দুই সপ্তাহ

কোনো বাথ স্পঞ্জের মেয়াদই দুই সপ্তাহের বেশি না। এই সময়ের মধ্যেই এতে ফাঙ্গাস ও জীবাণু বংশবিস্তার করতে শুরু করে। তাই দাম দিয়ে এই পণ্য না কেনাই ভালো। 

দৌড়ানোর জুতা- এক বছর

কয়েক মাইল দৌড়ানোর পরই, দৌড়ানোর জুতার নিরাপত্তার স্তর ঢিলা হতে শুরু করে। সেই সাথে আপনার পায়ের সংযোগস্থলে চাপ সৃষ্টি করে। যদি আপনার স্বাস্থ্যরক্ষার জন্য ব্যবহৃত দৌড়ানোর জুতা ইতোমধ্যে এক বছরের হয়ে গিয়ে থাকে তাহলে এখনই সময় পুরানো জুতা বাদ দিয়ে নতুন জুতা কেনার।

সূত্র: কলকাতা নিউজ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত