x

এইমাত্র

  •  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একদিনে ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত
  •  ২০ মিনিটে করোনা টেস্টের ট্রায়াল শুরু যুক্তরাজ্যে
  •  গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় নতুন সংক্রমিত ১৬৯৩ জন, মৃত্যু ২৪
  •  বিশ্বে করোনায় মোট মারা গেছেন ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৯৯৭ জন
  •  বিশ্বে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ ২০ লাখ ৯৪ হাজার ১৪৩ জন

ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে আরও দুজনের সাক্ষ্য প্রদান

প্রকাশ : ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:৩২

জাগরণীয়া ডেস্ক

ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যার ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে আরও দুজন সাক্ষ্য দিয়েছেন।

১ সেপ্টেম্বর (রবিবার) মামলার বাদী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের মনোনীত দুজন সাক্ষী বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মাদ আস সামছ জগলুল হোসেনের আদালতে সাক্ষ্য দেন।

সাক্ষী দুজন হলেন- অ্যাডভোকেট সবির নন্দী দাশ ও অ্যাডভোকেট সহকারী গোবিন্দ চন্দ দেব।

আগামী ১১ সেপ্টেম্বর (বুধবার) পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেছেন আদালত।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল মাদ্রাসা অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের মামলা তুলে না নেয়ায় পাঁচজন মিলে ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। যৌন নিপীড়নের মামলায় কারাগারে গেলেও জেলে বসেই নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যার পরিকল্পনা করেন ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসা অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা। মৃত্যুর সাথে লড়াই করে শেষ পর্যন্ত ১০ এপ্রিল মৃত্যুবরণ করে যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের প্রতীক নুসরাত। শরীরের ৮০ শতাংশের বেশি পুড়ে যাওয়া নুসরাতকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে এবং ঢামেকের বার্ন ইউনিটের আইসিউতে চিকিৎসা দেয়া হয়। তার চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ঐ ছাত্রীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর নেয়ার কথা থাকলেও মেয়েটির শারিরীক অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় শেষ মুহুর্তে তা সম্ভব হয়নি।

এ ঘটনায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাকে প্রধান আসামি এবং আটজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয় আরও ৪/৫ জনকে আসামি করে নুসরাতের ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান ৮ এপ্রিল সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

এই ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার কারণে গত ১০ এপ্রিল সোনাগাজী থেকে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে প্রত্যাহার করা হয়। এরপর গত ৮ মে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করার পর রংপুর রেঞ্জে সংযুক্ত করা হলে মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে তিনি রংপুর রেঞ্জ অফিসে যোগ দেন।

যৌন নিপীড়নের শিকার নুসরাত থানায় যে অভিযোগ করে তা সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন ভিডিও রেকর্ডিং করে এবং পরে তা ছড়িয়ে দেয়। গত ১৫ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন আদালতে মামলাটি করেন।

এ মামলায় গত ২৭ মে তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রীমা সুলতানা ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করেন। এরপর গত ১৬ জুন মোয়াজ্জেমকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ১৭ জুলাই আদালত আসামি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অভিযোগ গঠন করেন। ৩১ জুলাই (বুধবার) মামলার বাদী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বিশেষ জজ-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলমের আদালতে জবান্দবন্দি দেন। গত ২০ আগস্ট (মঙ্গলবার) সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের আইনজীবীরা ব্যারিস্টার সুমনকে জেরা করেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত