x

এইমাত্র

  •  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একদিনে ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত
  •  ২০ মিনিটে করোনা টেস্টের ট্রায়াল শুরু যুক্তরাজ্যে
  •  গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় নতুন সংক্রমিত ১৬৯৩ জন, মৃত্যু ২৪
  •  বিশ্বে করোনায় মোট মারা গেছেন ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৯৯৭ জন
  •  বিশ্বে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সুস্থ ২০ লাখ ৯৪ হাজার ১৪৩ জন

১৪ বছর পর স্ত্রী হত্যায় স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশ : ২৯ আগস্ট ২০১৯, ১৭:৫০

জাগরণীয়া ডেস্ক

রাজধানীর বাড্ডায় যৌতুকের জন্য এক গৃহবধূকে হত্যার দায়ে করা মামলার ১৪ বছর পর স্বামী সাইদুর রহমান মিল্টনের ফাঁসির রায় দিয়েছে আদালত। মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি আসামি মিল্টনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন বিচারক।

২৯ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক খাদেম উল কায়েস এ রায় দেন। এসময় আসামি সাইদুর রহমান মিল্টন আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, শারমীন আকতার হিয়াকে বিয়ে করার পর থেকে মিল্টন যৌতুকের জন্য চাপ দিয়ে আসছিল এসময় হিয়ার কথা ভেবে তার পরিবার দুই লাখ টাকা মিল্টনকে দেয়। তারপরও  আরও টাকার জন্য হিয়াকে চাপ দিয়ে আসছিল। বিয়ের সময় দেওয়া হিয়ার ২০ ভরি সোনার গয়নাও তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন বিক্রি করে দেয়। ২০০৫ সালের ৫ সেপ্টেম্বর রাজধানীর মধ্যবাড্ডা আদর্শনগর এলাকায় চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ শারমীন আকতার হিয়ার মরদেহ তার শ্বশুরবাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় হিয়ার চাচা থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা হওয়ার পর থানায় আত্মসমর্পণ করে এবং আদালতে দোষ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন হিয়ার স্বামী মিল্টন। দীর্ঘ ১৪ বছরের বিচার প্রক্রিয়া শেষে রাষ্ট্রপক্ষে ১২ জনের সাক্ষ্য শুনে আদালত বৃহস্পতিবার যখন মিল্টনের সর্বোচ্চ সাজার রায় ঘোষণা করে।

এই ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর আফরোজা ফারহানা আহমেদ বলেন, “রায়ে বিচারক বলেছেন, আসামি শুধু শারমীন আকতার হিয়াকে হত্যা করেনি, তার অনাগত সন্তানকেও হত্যা করেছে। এ কারণে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়াই যৌক্তিক।”

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত