বৃষ্টির মধ্যে গাড়ি চালনার বিষয়ে সাবধানতা

প্রকাশ : ১৯ জুলাই ২০১৭, ১৮:২৯

জাগরণীয়া ডেস্ক

বৃষ্টির পানি রাস্তায় লব্রিকেন্ট (মবিল) হিসেবে কাজ করে এবং গাড়ির চাকা ও রাস্তার মধ্যকার সংযোগক্ষেত্রে কমিয়ে দেয় বিধায় বৃষ্টির সময় রাস্তা থাকে পিচ্ছিল। এ-ছাড়া, বৃষ্টির সময় দৃষ্টিসীমা কমে আসে এবং কাঁচ ঝাপসা হয়ে যায়। এই সব মিলে বিপদের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় বিধায় এই সময় গাড়ি চালানো ঝুকিপূর্ণ।

মুষলধারে বৃষ্টির সময় দ্রুতগতিতে গাড়ি চালালে গাড়ির চাকা পানির উপর দিয়ে ঘর্ষণহীন অবস্থায় চলে। এতে, গাড়ি নিয়ন্ত্রণহীনভাবে চলতে থাকে, যা খুবই বিপজ্জনক।

বৃষ্টির সময় সাধারণ গতির চেয়ে অর্ধেক গতিতে অথবা গাড়ি যাতে অতি সহজেই থামানো যায় সে-রূপ গতিতে গাড়ি চালাতে হবে। হঠাৎ চালু করা, হঠাৎ থামানো ও দ্রুত মোড় নেওয়া পরিহার করতে হবে।

সব-সময় নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে। খুব ধীওে গাড়ির গতি ও দিক পরিবর্তন এবং ব্রেক করতে হবে।

ডোবা, গর্ত বা গভীর হয়ে জমে ওঠা পানির মধ্যে গাড়ি চালনোর সময় ব্রেকড্রামে পানি ঢোকার ঝুঁকি থাকে, যার ফলে ব্রেকের কার্যক্ষমতা কমে যেতে পারে। এইসব এলাকা যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে।

পথচারীর পাশ দিয়ে বা দোকানের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় অবশ্যই গাড়ির গতি কামতে হবে, যাতে কাদা বা পানি না ছিটে।

উইন্ডশিল্ড ওয়াইপার ঠিকভাবে কাজ করছে কি না সে-বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে। উইন্ডশিল্ডের ওপর জমে থাকা বৃষ্টির পানি মোছার জন্য ওয়াইপার ব্যবহার করতে হবে। উইন্ডশিল্ডে ধূলা-কাদা, তেল বা অন্য কোন ময়লা থাকলে তা পরিস্কার করে নিতে হবে। এ জন্য কার্যকর কোন ক্লিনিং ফ্লুইড/তরল সাবান উইন্ডশিল্ড স্কুইর্টার (পানি ছিটানোর যন্ত্র) এর ভেতরে ভরে রাখতে হবে।

বৃষ্টির সময় কাঁচের ভেতরের দিক ঝাপসা হয়ে গেলে ডি-ফ্রস্টার বা হিটার চালাতে হবে অথবা পাশের কাঁচগুলো অল্প নামিয়ে নিতে হবে।

বৃষ্টির পানিতে মাটি নরম হয়ে অনেক ক্ষেত্রে ভূমিধ্বসের সৃষ্টি করে। তাই, পাহাড়ি রাস্তার কিনারার বেশি কাছে যাওয়া উচিৎ নয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত